১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

মনের জানালা মাঝে # ৩২


(৩৪০)
 লেখনীর শৈল্পিকতা

কিছু মানুষের লেখা অনেক বছর ধরেই পড়া হয়ে যায়। ইদানিং অনেকের লেখার ভাষায়, শব্দে, গভীরতায়, আবেগে কেমন মোহমুগ্ধ হয়ে যাই। আজ একজনের লেখা পড়ে চোখে প্রায় পানি চলে এলো... নিজে ভীষণ মন-প্রাণ-শ্রম দিয়ে লিখতে চেষ্টা করতাম বলে বুঝি, এই দক্ষতা,উন্নতিটুকু কতটা অমূল্য। সেই মানুষগুলো হয়ত নিজেরাও টের পাননা আল্লাহ তাদের শব্দে, লেখনীতে কী ভীষণ শক্তি দিয়েছেন! এরকম সুবিশাল শক্তি আল্লাহ এই দুনিয়ার লক্ষ লক্ষ সাহিত্যে, শিল্পে ছড়িয়ে দিয়েছেন। সেসব সৃষ্টিশীলতার সৌন্দর্যের মুগ্ধতায় আচ্ছন্ন হয় তারই সৃষ্টি কোটি কোটি মানব হৃদয়। সবকিছু তারই সৃষ্টি-- এই দক্ষতা, এই শিল্প, এই সৌন্দর্য, এই আবেগ, এই অনুভূতি সবই তার সৃষ্টি। আমাদের নিপুণ স্রষ্টা, আল-খালিক, গাফুরুর রাহীম।

(৩৪১)
সৌন্দর্য ছড়িয়ে থাকে সমস্ত সৃষ্টির মাঝে। এমনকি আমাদের প্রতিদিনের প্রতিটি কাজের মাঝেও। যত্ন করে, ভালোবাসা দিয়ে করা কাজগুলো হৃদয়ে আনন্দ তৈরি করে।

(৩৪২)
সৌন্দর্য ছড়িয়ে আছে সর্বত্র। কেবল সুন্দর মনগুলোই তা খুঁজে পায়...

(৩৪৩)
সত্যিকারের গন্তব্য খুঁজে পাওয়ার আগে একজন মুসাফিরকে বেশ কিছু মরীচীকার বিভ্রম পার হতে হয়।

(৩৪৪)
জীবনের চলার পথে মানুষের মাঝে যে ভালোবাসা আপনি ছড়িয়ে যাবেন, সে ভালোবাসাই ঘুরে ফিরে এসে আপনাকে স্পর্শ করবে; অন্য কোথাও, অন্য কারো মাধ্যমে।

(৩৪৫)
খাঁচার শিকের ভেতরে জন্ম নিয়ে খাঁচায় বেড়ে ওঠা পাখিরা মনে করে ওড়াওড়ি হয়ত এক প্রকার রোগ।
 
(৩৪৬)
জীবিত মানুষের চেয়ে মৃত মানুষ বেশি পরিমাণ ফুল উপহার পেয়ে থাকে। কেননা, অনুশোচনার অনুভূতি কৃতজ্ঞতার অনুভূতি থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী।~ অ্যানি ফ্র্যাঙ্কের ডায়েরি থেকে

(৩৪৭)
"বোঝেনা সে বোঝেনা"....
বাংগালি আবালবৃদ্ধবনিতা নারীর মরণনেশার নাম, প্রতিটি নারী মনকে কুটিল থেকে কুটিলতর করার অব্যর্থ মারণাস্ত্র।

(৩৪৮)
একদা একজন জ্ঞানী মানুষ....
.
.
.
.
.
কোন কথাই বলেন নি!

(৩৪৯)
বিশালতার সাথে সৌন্দর্যের একটা কেমন যেন যোগ আছে। এই যে আকাশ। তার মাঝে সাদা মেঘ যখন ভেসে যায়। সে এক অদ্ভুত সুন্দর দৃশ্য। কিন্তু এই সৌন্দর্যকে আকাশ কিংবা মেঘ--কেউই উপলব্ধি করতে পারে না। শূণ্যে ভেসে থাকা মেঘগুলো জানেনা সেই বিশালতার নিচে সে কেমন শৈল্পিক স্নিগ্ধতা তৈরি করে মানব মনে। বিশালতার সাথে বেদনার কেমন যেন যোগ আছে। মানব মন ঠিক বুঝে না। মানুষ বুঝেই বা কতটুকু?